HEALTHবাংলা

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাসঃ এই মুহূর্তে করণীয়

Image Copyright: UNICEF/UNI310746/Viet Hung

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস বিস্তার লাভ করার আশঙ্কা রয়েছে । এই ভাইরাস সংক্রমণ খুব দ্রুত ঘটে থাকে। তাই সচেতনতার কোন বিকল্প নেই। জনমনে একটাই প্রশ্ন ‘এই মুহূর্তে কী কী করণীয় ?

১। আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হতে হবে। অন্যকেও সচেতন করতে হবে। সঠিক তথ্য জানতে হবে। এপ্রিল মাসের প্রথম ২ সপ্তাহ এর সংক্রমণ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই অবহেলা না করে সতর্ক থাকুন। 

২। প্রয়োজন ব্যতীত ‘পাবলিক প্লেসে’ যাওয়া কিছু দিনের জন্য বন্ধ করুন। ঘরের ভেতর থাকলে ৮০% নিরাপদ আপনি। চায়ের দোকান এবং হাট-বাজার ইত্যাদি  এড়িয়ে চলুন। 

৩। বাস, ট্রেন, বিমান ইত্যাদি চড়া থেকে বিরত থাকুন অথবা নিরাপদে যাতায়াত করার যথাসম্ভব চেষ্টা করুন । যানবাহন চড়ার পর নিজেকে পরিচ্ছন্ন রাখার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে সাবান ব্যবহার করে গোসল করে নিন।

৪। ঘরের বাইরে বের হলে সার্জিকেল মাস্ক ব্যবহার করুন এবং ব্যবহার শেষে নিরাপদ জায়গায় ফেলে দিন।

অন্যান্য মাস্ক ব্যবহার করলে অবশ্যই খেয়াল করবেন যেন মাস্কটিতে ২-৩ লেয়ার যাতে থাকে। ব্যবহার শেষে সাবান দিয়ে ধুয়ে পুনরায় সর্বোচ্চ ১-২ বার ব্যবহার করুন।  

৫। অফিস বা কর্মস্থল থেকে ফেরার পর সাবান ব্যবহার করে হালকা গরম পানি দিয়ে গোসল করে নিন এবং নাক, মুখমণ্ডল ভালোভাবে হালকা গরম পানি দিয়ে পরিষ্কার করে নিন। ব্যবহৃত পোশাক/জামা সরাসরি একটি বালতিতে আলাদা করে সাবান/ডিটারজেন্ট/স্যাভ্লন দিয়ে ভিজিয়ে রাখবেন। 

৬। নাক, মুখ, চোখ, ইত্যাদি অঙ্গ স্পর্শ করা থেকে বিরত থাকুন। হ্যান্ডশেক, কোলাকুলি, ইত্যাদি করা থেকে বিরত থাকেন। ঘরবাড়ি স্যাভলন/ডেটল অথবা সাবান পানি দিয়ে মুছে নিলে ভালো হয়।

বাড়ির সিঁড়ির হাতল ধরা থেকে বিরত থাকুন। লিফট ব্যবহার শেষে হাত-মুখ পরিষ্কার করে নিবেন। সোফা, চেয়ার, টেবিল নিয়মিত সাবান পানি বা অন্যান্য জিবাণুনাশক দিয়ে মুছে নিবেন। 

৭। টাকা লেনদেন শেষে সাবান অথবা অন্য যে কোন ভালো পরিষ্কারক সামগ্রী দিয়ে কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড ধরে পরিষ্কার করুন। আপনার মোবাইল ফোন পরিষ্কার করুন।

ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারে লেনদেনের সময় অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করুন।  

৮। হাচি-কাশি দেয়ার সময় মুখ ঢেকে রাখুন। টিস্যু পেপার ব্যবহার করুন। ব্যবহৃত টিস্যু পেপার নির্দিষ্ট স্থানে ফেলে দিন। সাবান অথবা হ্যান্ডওয়াশ সামগ্রী দিয়ে হাত ধুয়ে নিন। যেখানে সেখানে থুথু ফেলবেন না।

৯। জ্বর, কাশি, গলা ব্যথা, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি হলে সাথে সাথে ডাক্তারের পরামর্শ নেন। সন্দেহ হলে নিকটস্থ ভালো হাসপাতালে নিয়ে যান। করোনার লক্ষণ দেখা দিলে জরুরি নাম্বারে ফোন দিন।  এক্ষেত্রে সরাসরি ডাক্তারের সাথে কথা বলুন ১৬২৬৩ তে ।

আক্রান্ত অথবা সন্দেহজনক ব্যাক্তিকে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের থেকে আলাদা রাখবেন। 

তবে খেয়াল রাখবেন সাধারণ ফ্লু (Flu) হলেও অনেকের জ্বর, শর্দি, কাশি হয়ে থাকে। সাধারণ জ্বর, শর্দিতে আতঙ্কিত না হয়ে ডাক্তারের পরামর্শ নেন। 

১০। দেহকে সুস্থ স্বাভাবিক রাখতে ভিটামিন সি জাতীয় খাবার খেতে পারেন যেমন ফলমূল, শাকসবজি। এগুলো আপনার দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষ্মতা বাড়াতে সাহায্য করবে। লেবুর শরবত খেতে পারেন। এই কয়েকদিন ধূমপান পরিহার করুন। 

১১। বাজার-সদাই  বা বাইরে থেকে আনা  প্যাকেটজাত/বোতলজাত কোন কিছু  ভালোকরে সাবান পানিতে চুবিয়ে রাখবেন।

তরকারি, মাছ, মাংস ইত্যাদি ভালোকরে লবণ-পানি দিয়ে ধুয়ে নিবেন। যেহেতু এসব খাদ্যে জীবানুনাশক দেয়া সম্ভব নয় কাজেই ভালো করে সেদ্ধ করে খাওয়ার বিকল্প নেই। 

১২। সচেতনতাই পারে এই ভাইরাসের ভয়াবহতা কমাতে। তাই সময় থাকতে সচেতন হোন।

“আশাবাদী সচেতন এবং সাহসী মানুষরাই পারে এই ভয়কে জয় করতে । আসুন সবাই মিলে সচেতন হই, মনে সাহস রাখি, আর মনে আশা সঞ্চয় করি” 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close